অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

মার্কেটিং অংশটি ব্যবসার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত একটি বিষয় । ব্যবসার মার্কেটিং দুইভাবে করা যায় একটা হচ্ছে অনলাইন আর একটা অফলাইন । আপনি যদি ব্যবসা মার্কেটিং না করেন তাহলে কোনদিনও উন্নতি করতে পারবেন না আপনার ব্যবসা সম্পর্কে কেউ জানবে না । আপনার বেশি আয় হবে না । আপনি যত মার্কেটিং বেশি করবেন তত আপনার ব্যবসা ভালো চলবে ইনকাম তত বেশি করতে পারবেন। 

বর্তমানে আমরা ডিজিটাল যুগে বসবাস করছি । বর্তমান প্রযুক্তির কল্যাণে অনলাইনে ব্যবসা করা যায়। অনলাইনে মার্কেটিং করা যায়। এখন পৃথিবীর সব দেশের মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে সব কাজ অনলাইনে করে। এখন আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়াতে মার্কেটিং করতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসার মার্কেটিং ভালো হবে। আপনার ব্যবসা সম্পর্কে অনেক মানুষ জানতে পারবে। আপনার ব্যবসায় তাড়াতাড়ি উন্নতি আসবে। তাছাড়াও অফলাইনের থেকে অনলাইনে মার্কেটিং করা অনেক সাশ্রয়ী হয় এবং খুব তাড়াতাড়ি বেশি মানুষের কাছে পৌঁছানো যায় । 

আগেকার সময় ব্যবসায় মার্কেটিং করার জন্য অফলাইনে সবাই মার্কেটিং করত এতে অনেক খরচ বেশি হয়। অফলাইনে মার্কেটিং করতে হলে অনেকগুলো সেক্টরে সমান অর্থ ব্যয় করতে হয়। সবার প্রথমে মডেলিং ঠিক করা, ক্যামেরাম্যান, বিজ্ঞাপন বানানোর প্রতিষ্ঠান, ইত্যাদি। অফলাইনে ব্যবসার মার্কেটিং করলে অনেক সময় লাগে ব্যবসায় প্রচার হতে। অনলাইনে ব্যবসা মার্কেটিং করলে বেশি ট্রাফিক পাওয়া যায় না। সবার কাছে ব্যবসা প্রচার হয় না। সব মিলিয়ে অফলাইনে মার্কেটিং করার জন্য বিশাল অর্থ ব্যয় হয়। 

কিন্তু বর্তমান প্রযুক্তির কল্যাণে অনেক কম খরচে অনেক কম সময়ে অনেক বেশি মানুষের কাছে পৌঁছানো যায অনলাইনে মার্কেটিং করে। অনলাইন মার্কেটিং করলে অনেক কম খরচে করা যায়। নিজে নিজেই অনলাইন মার্কেটিং করা যায় বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে‌ । বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে বিজ্ঞাপন দিয়ে। আপনার ব্যবসার পণ্য যে ধরনের সে ধরনের মানুষকে টার্গেট করে আপনি অনলাইনে মার্কেটিং করতে পারবেন এবং তাদের কাছে আপনার পণ্য সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট  মার্কেটিং হল ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটা অংশ । যেখানে আপনার কোন ব্যবসা থাকতে হবে না, কোনো পণ্য থাকতে হবে না, শুধু অন্যের পণ্য নিয়ে আপনি সেই পণ্য বিক্রি করতে পারলে সেই পণ্যের উপর কিছু কমিশন পাবেন। এই কমিশন কে বলা হয় অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে কোন কিছু প্রয়োজন হয় না। শুধু আপনার স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেট সংযোগ থাকলেই আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারবেন । 

বর্তমানে অনলাইনে অনেক অ্যাফিলিয়েট নেটওয়ার্ক পাওয়া যায়, যেগুলোতে একাউন্ট করে আপনি তাদের পণ্য নিয়ে মার্কেটিং করে বিক্রি করে দিতে পারলে সেই প্রোডাক্ট এর উপরে যত পারসেন্ট কমিশন দেওয়া থাকে সেই কমিশন আপনাকে দেওয়া হবে । বর্তমানে অনেক ভালো কমিশন পাওয়া যায় অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে। বর্তমানের সবাই অনলাইনে কেনাকাটা করে সেহেতু অনলাইনে আফিলিয়েট মার্কেটিং করলে ভালো কমিশন পাওয়া যায়। বর্তমানে আমাদের দেশে অনেক মানুষ আফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনেক ভালো পরিমাণ অর্থ ইনকাম করছেন। 

বর্তমানে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আমাদের জন্য ভাল একটা ইনকাম করার সুযোগ করে দিয়েছে। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আমরা অনেক উপকার পেয়ে থাকি যেমন, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করতে আমাদের কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান প্রয়োজন হয় না। আমাদের নিজেদের কোন পণ্যের প্রয়োজন হয় না। শুধু আমরা অন্যের ব্যবসা থেকে পণ্য অনলাইনে মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারি। দিন যত যাচ্ছে অনলাইন অ্যাফিলিয়েট নেটওয়ার্কগুলো আরো বাড়ছে এতে করে আমাদের আরও কাজের সুযোগ তৈরি হচ্ছে। অনলাইন আফিলিয়েট মার্কেটিং করতে গেলে আমাদের কোন ইনভেস্ট এর প্রয়োজন হয় না। আমরা সম্পূর্ণ ফ্রিতে অন্যের পণ্য নিয়ে মার্কেটিং করে বিক্রি করে কমিশন পাই। এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে বেশি কিছু লাগে না সেজন্য আমাদের দেশে অনেক মানুষ এফিলিয়েট মার্কেটিং এর সাথে যুক্ত হচ্ছে। 

এতে করে আমরা যেমন ইনকাম করতে পারছি তেমনি তাদের ব্যবসা প্রচার হচ্ছে এবং তাদের পণ্য বেশি বেশি বিক্রি হচ্ছে। তাদের পণ্যের লাভের কিছু পরিমাণ অংশ আমাদের দিয়ে বাকি লাভ তারা নিচ্ছে।‌‌ এতে করে তাদের ব্যবসা দ্রুত প্রচার হচ্ছে এবং সবাই জানতে পারছে তাদের ব্যবসা সম্পর্কে। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আমাদের থেকে তারাই বেশি লাভবান হচ্ছে এই কারণে যে, তাদের ব্যবসার প্রচার হচ্ছে তাদের সম্পর্কে সবাই জানতে পারছে। তাদের পণ্য বিক্রি করে যে অর্থ লাভ হতো তার থেকে কিছু অংশ আমাদের দিয়ে তাদের ব্যবসা কে সবার মাঝে তুলে ধরার জন্য এই মার্কেটিং সিস্টেম চালু করেছে। এই সিস্টেমকে বলা হয় ডিজিটাল মার্কেটিং । বর্তমানে এই ডিজিটাল যুগে ব্যবসাকে টিকে রাখার জন্য নতুন নতুন পদ্ধতিতে মার্কেটিং করতে হবে এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ও একটা নতুন পদ্ধতি ।

এই এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আমাদের থেকে যারা অ্যাফিলিয়েট নেটওয়ার্কগুলোতে পণ্য বিক্রি করার জন্য অফার দেয় তারাই বেশি লাভবান হচ্ছে অনেক দিক দিয়ে। একটা বড় দিক হলো তাদের ব্যবসা কে সবার মাঝে তুলে ধরছেন। তাদের ব্যবসার প্রচার হচ্ছে। তাদের ব্যবসা সম্পর্কে সবাই ভাল জানতে পারছে। 

সবশেষে বলা যায় যে, আমরা যারা অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চাই তারা এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ভালো একটা কমিশন ইনকাম করতে পারি । আমাদের দেশে অনেক মানুষ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ভালো একটা অর্থ ইনকাম করছে।

Comments

You must be logged in to post a comment.

লেখক সম্পর্কেঃ